নজরুল ইসলামের জীবন যেমন বিচিত্র, তার প্রতিভাও তেমনি বহমূখী। আধুনিক বাংলা কাব্য ও সংগীতের ইতিহাসে নজরুল নিঃসন্দেহে একটি বিশেষ অধ্যায়ের যোজনা করেছেন। 

বিংশ শতাব্দীর তৃতীয় দশকের সবচেয়ে নির্ভীক ও বলিষ্ঠ কবিকণ্ঠ তারই। একমাত্র রবীন্দ্রনাথকে বাদ দিলে বর্তমান শতাব্দীতে জনপ্রিয়তার মাপকাঠিতে নজরুল সর্বপ্রধান কবি।

প্রথম যুদ্ধোত্তর যুগে অতিআধুনিক বাংলা কাব্যকে রবীন্দ্রকাব্য থেকে স্বতন্ত্র একটি নিজস্ব গতিপথ খুঁজে নিতে সাহায্য করার প্রতিজ্ঞা নিয়ে যারা এগিয়ে এসেছিলেন তাদের মধ্যে নজরুল অন্যতম। 

এই যুগে পরাধীন, সমস্যাপীড়িত ও দন্দ্বর্জরিত বাংলা দেশের স্বাধীনতাস্পৃহা, বিদ্রোহ, নৈরাশ্য ইত্যাদি নানাবিধ ভাবতরঙ্গ সবচেয়ে সার্থক ভাবে রূপায়িত হয়েছে তার কাব্যে।

 এ ক্ষেত্রেও জনপ্রিয়তার বিচারে রবীন্দ্রনাথের পরেই তাঁর স্থান। রচনা করেছেন অসংখ্য কাব্যগ্রন্থ, নাটক, গল্প, প্রবন্ধ ইত্যাদি। তাঁর সব রচনাগুলি সমগ্র আকারে প্রকাশিত হয়েছে।